Header Ads

জাপানীদের বিচিত্র শেষকৃত্য - মরণের পরের ব্যতিক্রমী যাত্রা

জাপানে বয়োজেষ্ঠ্য মানুষের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছেসেখানে এখন প্রতি ৫ জনের মধ্যে একজনের বয়স ৬৫ বা তার চেয়ে বেশীফলে সে দেশে মৃত্যু নিয়ে ব্যবসা এখন রমরমাএখানে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার খরচ অত্যন্ত বেশীসম্মানজনক ভাবে একটি শেষকৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করতে হলে কম করে হলেও হাজার চল্লিশেক ডলার ব্যয় করতে হয়এক জন জাপানীকে মৃত্যুর পর বেশ জটিল ও সময়সাপেক্ষ প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে মর্ত্যলোক থেকে বিদায় নিতে হয়

প্রথমে লাশকে বাড়িতে এনে রাখা হয়বৌদ্ধ ধর্মানুসারে নানা মন্ত্র পাঠ করে মৃতদেহকে সম্মান জানায় শোক পালনকারীরাএকটি বেদি কিনে তাতে মৃত ব্যক্তির ছবি টাঙ্গিয়ে রাখা হয়যতদিন শোক পালন করা হবে, ততদিন এই ছবি ঝুলবেবাড়ির আঙিনা সাজানোর জন্য কিনে আনতে হয় সাদা-কালো ব্যানার, লন্ঠন ও ফুলশুধু পুরোহিত জোগাড় করলেই চলবেনা, কান্নাকাটি করার জন্য লোকও ভাড়া করে আনতে হয়সেই সঙ্গে মৃতদেহ পোড়ানোর জন্য জায়গা রিজার্ভ করে রাখতে হয়জমির ¯^íZvi জন্য জাপানে লাশ দাহ করা বাধ্যতামূলক। 

মেহমানদের কিন্তু খালি হাতে বিদায় করা যাবেনা, উপহার হিসেবে দিতে হবে তোয়ালে সেট বা প্রি-পেইড ফোন কার্ডযাতে মুদ্রিত থাকবে কষ্ট ¯^xKvi করে অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করার জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন বানীএরপরও হাঁফ ছেড়ে বাঁচার উপায় নেইঅনুষ্ঠানের শেষে মৃতের পরিবারের হাতে এসে পৌছায় মোটাসোটা অংকের বিল। 

এই টাকা যায় মন্দির কর্তৃপক্ষ বা শেষকৃত্য অনুষ্ঠান আয়োজনকারীর পকেটেএভাবে মৃত আত্নীয়কে নিয়ে Avo¤^ic~Y© আনুষ্ঠানিকতা করতে গিয়ে অনেক জাপানী তাদের ব্যাংক এ্যাকাউন্ট থেকে প্রচুর টাকা খুঁইয়েছেনমূলত বর্তমানে জাপানে শেষকৃত্য অনুষ্ঠান একটি প্রতিযোগীতার বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.